Print Paper - news69bd.com - Publish Date : 12 June 2019

রিজার্ভ ডে না থাকায় ক্ষোভ

রিজার্ভ ডে না থাকায় ক্ষোভ

স্পোর্টস ডেস্ক, ১২ জুন : ইতিহাসের জন্ম দিয়ে ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলস ক্রিকেট বিশ্বকাপে ইতোমধ্যেই তিনটি ম্যাচ বৃষ্টির কারণে বাতিল হয়ে গেল। এরমধ্যে দুটি ম্যাচে টসও করা সম্ভব হয়নি। যা ক্রিকেটের এই ধরনের সংস্করণে কখনোই দেখা যায়নি।

বাতিল হওয়ার সম্ভাবনায় আছে আরো বেশ কয়েকটি ম্যাচ। বলতে গেলে বৃষ্টিই হয়ে উঠছে ফলাফল নির্ধারণের অন্যতম নিয়ামক। অনেক দল শুধু বৃষ্টির কবলে পড়েই ছিটকে যেতে পারে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ এই আসর থেকে। তাই স্বাভাবিকভাবেই ক্ষোভ ঝরলো আজকের ম্যাচের ফেভারিট দল বাংলাদেশের কোচ স্টিভ রোডসের কথায়।

শ্রীলংকার সঙ্গে পয়েন্ট ভাগাভাগি করতে বাধ্য হওয়ার পর তিনি প্রশ্ন উত্থাপন করেন, আমরা চাঁদে মানুষ পাঠাতে পারি তাহলে কেন একটা রিজার্ভ ডে রাখতে পারলাম না? যখন এটা একটা দীর্ঘ মেয়াদী আসর।

রিজার্ভ ডে রাখার সুযোগ দেখিয়ে তিনি বলেন, আমাদের ম্যাচগুলোর মধ্যে দীর্ঘ গ্যাপ আছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে ৩/৪ দিনেরও বেশি সময় আছে। উদাহরণ হিসেবে বাংলাদেশের পরবর্তী ম্যাচ পাঁচ দিন পরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বলে জানান তিনি।

বৃষ্টির কারণে দর্শকদের বঞ্চিত হওয়ার বিষয়টিও স্মরণ করিয়ে দেন স্টিভ রোডস। তিনি বলেন, দর্শকরাও হতাশ হচ্ছেন। কারণ তারা টিকেট কেনেন একটি ক্রিকেট ম্যাচ দেখবেন বলে। রিজার্ভ ডে থাকলে তারা হয়ত ম্যাচটি উপভোগ করতে পারতো।

রিজার্ভ ডে'র পক্ষে কথা বলেন শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নেও। তিনি বলেন, একটা রিজার্ভ ডে থাকলে খুব ভালো হতো। যেহেতু এটা একটা সর্বোচ্চ টুর্নামেন্ট এবং আমরা মাত্র নয়টি ম্যাচ খেলবো।

এদিকে ইংল্যান্ডের মতো জায়গায় এই সময়ে প্রচুর বৃষ্টিপাতের আশংকা থাকার পরও বিশ্বকাপ আয়োজন করায় আইসিসির সমালোচনায় মুখর ক্রিকেট প্রেমীরা। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে নানান ভাষায় আইসিসিকে ট্রল করছেন তারা।

এই আসরে এ পর্যন্ত ১৬টি ম্যাচের তিনটি ম্যাচ ভেসে গেছে বৃষ্টিতে। এর আগে সবচেয়ে বেশি ১৯৯২ ও ২০০৩ বিশ্বকাপে দুটি করে ম্যাচ বাতিল হয়েছে।