Print Paper - news69bd.com - Publish Date : 7 February 2019

বেসামরিক লোকজনকে হত্যার অনুমতি ছিল ব্রিটিশ সেনাদের

বেসামরিক লোকজনকে হত্যার অনুমতি ছিল ব্রিটিশ সেনাদের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ৭ ফেব্রুয়ারি : ইরাক ও আফগানিস্তানে বেসামরিক নাগরিকদের গুলি করার ক্ষমতা দেয়া হয়েছিল ব্রিটিশ সেনাদের। লন্ডনভিত্তিক মিডল ইস্ট আই মনিটরের খবরে এমন তথ্য দিয়েছে। বেশ কয়েকজন সাবেক ব্রিটিশ সেনা সদস্যের সাক্ষাৎকার নিয়ে প্রতিবেদনটি লিখেছেন ইয়ান কোবেইন।

কোনো বেসামরিক নাগরিক তাদের গতিবিধি নজর রাখছে এমন সন্দেহ হলেই তারা গুলি করতে পারবে বলে অনুমতি দেয়া হয়েছিল বলে জানিয়েছেন সাবেক ব্রিটিশ সেনারা।

এ কারণে সেনারা যে কোনো সময় যে কাউকে গুলি করতেন। এমনকি কারও হাতে ফোন কিংবা কোনো খন্তা-শাবল বা কাউকে সন্দেহজনক কিছু করতে দেখলেই গুলি করে দিতেন।

এভাবে বেশ কিছু শিশু ও কিশোরসহ অনেককেই হত্যা করা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, নিরস্ত্র বেসামরিক লোকজন ব্রিটিশ সৈন্যদের গতিবিধির ওপর নজর রাখছে, এমন সন্দেহ হলে তাদের গুলি করতে বলা হয়েছিল। কয়েকজন সাবেক সৈন্য এমইইকে জানান, এমনভাবে গুলিতে নিহত নিরস্ত্র মানুষের মধ্যে কিশোর ছেলে ও শিশুরাও রয়েছে।

একপর্যায়ে এমন অবস্থা দাঁড়ায়, স্থানীয়দের হাতে মোবাইল ফোন থাকলে, বেলচা বহন করলে বা অন্য কোনোরকম সন্দেহজনক আচরণ করলে তাদের গুলি করার অনুমতি দেয়া হয়েছিল।

দুজন সৈন্য এমইইকে জানান, দক্ষিণ ইরাকে নিযুক্ত থাকার সময় তাদের ও তাদের সঙ্গীদের এই অনুমতি দেয়া ছিল। নিরস্ত্র লোকজন জঙ্গিদের সংবাদদাতা হিসেবে কাজ করছে বা পথের পাশে বোমা পেতে রাখছে, এমন উদ্বেগের কারণেই সেখানে নিয়ম শিথিল করা হয়েছিল।

আরেকজন সাবেক রয়্যাল মেরিন সদস্য বলেন, তার একজন অফিসার আফগানিস্তানে একটি আট বছরের শিশুকে গুলি করে হত্যার কথা স্বীকার করেছিল। ছেলেটির বাবা তাদের ঘাঁটির সামনে এসে এর ব্যাখ্যা চাইলে তিনি অধীনস্ত সৈন্যদের কাছে এ কথা স্বীকার করেন।

আরেকজন সাবেক সৈন্য বলেন, আফগানিস্তানে সৈন্যরা দুজন নিরস্ত্র কিশোরকে গুলি করে হত্যার পর ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়া হয়েছিল।

তিনি বলেন, ব্রিটিশ সৈন্যদের ঘাঁটি থেকে সোভিয়েত আমলের কিছু অস্ত্র নিয়ে ওই ছেলেগুলোর মৃতদেহের পাশে রাখা হয়েছিল যেন মনে হয় তারা সশস্ত্র তালেবান যোদ্ধা।