adimage

২১ নভেম্বর ২০১৯
সকাল ০১:৫৮, বৃহস্পতিবার

নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে

আপডেট  03:51 AM, নভেম্বর ০৭ ২০১৯   Posted in : জাতীয়    

নিম্নচাপটিঘূর্ণিঝড়েরূপনিতেপারে

ঢাকা, ৭ নভেম্বর : বঙ্গোপসাগরে উত্থিত গভীর নিম্নচাপটি শেষ পর্যন্ত পরিণত হচ্ছে ঘূর্ণিঝড়ে। শেষ পর্যন্ত তা বাংলাদেশের সুন্দরবন অথবা এর সংলগ্ন এলাকায় এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গ উপকূলে উঠে আসতে পারে আগামী রোববারের দিকে। এ ঘূর্ণিঝড়টির নাম হবে বুলবুল। বাংলাদেশে শব্দটি ‘গায়ক পাখি’ হিসেবে পরিচিত। এটা পাকিস্তানের দেয়া নাম।

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রথম দিককার মডেল পর্যালোচনা করে এর গতিপথ ভারতের উড়িষ্যা উপকূলে যেতে পারে বলে পূর্বাভাস দেয়া হলেও গতকাল দুপুরের দিকে ঘূর্ণিঝড়ের নতুন মডেলে এর গতিপথ বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের দিকে ঘুরে গেছে বলে নির্দেশ করেছে। এখনো এটা বাংলাদেশ উপকূল থেকে হাজার কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে।

কানাডা থেকে আবহাওয়া গবেষক মোস্তফা কামাল গতকাল জানিয়েছেন, ঘূর্ণিঝড়টি সাগরে কিছু বেশি সময় অবস্থান করলে তা শক্তিশালী হয়ে যেতে পারে। তবে এখন পর্যন্ত এটা দুর্বল প্রকৃতির হবে বলেই মনে করা হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের গ্লোবাল ফোরকাস্ট সিস্টেম, কানাডার ডিইএম, জার্মানির আইসিওএন এবং যুক্তরাষ্ট্রের নেভি গ্লোবাল এনভায়রনমেন্ট মডেল নামক চারটি আবহাওয়া পূর্বাভাস কেন্দ্রের মডেলে সম্ভাব্য ঘূর্ণিঝড়টি বাংলাদেশের সুন্দরবন উপকূলে আগামী শনিবার বিকেলের দিকে আঘাত হানতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে। তবে সবই স্পষ্ট করে বলা যাবে ঘূর্ণিঝড়টি উপকূলের দিকে আরো কিছুটা কাছে এলে।

গতকাল বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতর এটাকে গভীর নিম্নচাপ হিসেবে বলেছে। গতকাল দুপুরে প্রকাশ করা ৭ নম্বর বুলেটিনই সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত আবহাওয়া অফিস অব্যাহত রেখেছে। রাতে একজন আবহাওয়াবিদ এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতর পরবর্তী ৮ নম্বর বুলেটিনে গভীর নিম্নচাপটিকে ঘূর্ণিঝড় হিসেবে উল্লেখ করতে পারে।

আবহাওয়া অফিসের ৭ নম্বর বুলেটিনে জানিয়েছে, গভীর নিম্নচাপটি তখনো চট্টগ্রাম বন্দর থেকে এক হাজার পাঁচ কিলোমিটার দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার থেকে ৯৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমে, মংলা বন্দর থেকে ৯৯৫ এবং পায়রা বন্দর থেকে ৯৫০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল। নিম্নচাপ কেন্দ্রের ৪৮ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা গতিবেগ ঘণ্টায় ৫০ কিলোমিটার যা দমকা ও ঝড়োহাওয়ার আকারে ৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছিল। গভীর নিম্নচাপ কেন্দ্রের কিট সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে। দেশের চার সমুদ্রবন্দরকে গতকাল পর্যন্ত ১ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সতর্কতা সঙ্কেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সকল মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি এসে সাবধানে চলাচল করতে এবং গভীর সাগরে বিচরণ না করার জন্য বলা হয়েছে।

স্কাইমেট ওয়েদার ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের একটি সম্ভাব্য গতিপথ প্রকাশ করেছে। এতে দেখা যায় আগামী রোববার সকালে বুলবুল বাংলাদেশের সুন্দরবন এলাকা ও পশ্চিমবঙ্গ এলাকায় উঠে আসতে পারে। উপকূলে আঘাত হানার সময় কত কিলোমিটার বেগে আগাত করবে তা এখনো নির্দেশ করা সম্ভব হয়নি।


সর্বাধিক পঠিত

Comments

এই পেইজের আরও খবর

মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন

nazrul