adimage

২৪ অগাস্ট ২০১৯
বিকাল ০৯:২৪, শনিবার

সোনাগাজীর সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম সাময়িক বরখাস্ত

আপডেট  10:25 AM, মে ১০ ২০১৯   Posted in : জাতীয়    

সোনাগাজীরসাবেকওসিমোয়াজ্জেমসাময়িকবরখাস্ত

ঢাকা, ১০ মে : মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার কারণে ফেনীর সোনাগাজী থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার মোয়াজ্জেমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয় বলে আজ শুক্রবার পুলিশ সদর দপ্তরের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। তদন্ত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে বরখাস্ত করা হয় ওসি মোয়াজ্জেমকে।

পুলিশের সহকারী মহাপরিদর্শক (মিডিয়া) সোহেল রানা জানান, মোয়াজ্জেম হোসেনকে সাময়িক বরখাস্ত করে রংপুরে ডিআইজির কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে।

সোহেল রানা আরো জানান, পুলিশ সদর দপ্তরের তদন্ত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ওসি মোয়াজ্জেম আপাতত বেতন-ভাতা ও তাঁর পদ অনুযায়ী সুযোগ-সুবিধা পাবেন না। তবে নিয়ম অনুযায়ী খোরাকি ভাতা পাবেন।

নুসরাত হত্যার ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে তদন্ত শেষে পুলিশ সদর দপ্তরের তদন্ত দল ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনসহ অন্তত চারজনের গাফিলতির প্রমাণ পাওয়ার কথা জানিয়ে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করেছিল।

ডিআইজি এস এম রুহুল আমিনের নেতৃত্বে গঠিত পাঁচ সদস্যের ওই তদন্ত দল গত ৩০ এপ্রিল তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়।

নুসরাতকে হত্যার ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় গত ১০ এপ্রিল ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার করে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নে (এপিবিএন) বদলি করা হয়।

এ ছাড়া নুসরাত হত্যা মামলা তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনে (পিবিআই) স্থানান্তর করা হয়।

যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ না করে ভুক্তভোগীকে জিজ্ঞাসাবাদ, ভিডিও ধারণ ও ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ এনে গত ১৫ এপ্রিল ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, যৌন হয়রানির অভিযোগে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে মামলার পর ২৭ মার্চ নুসরাতকে থানায় ডাকেন ‍ওসি মোয়াজ্জেম। থানায় জিজ্ঞাসাবাদের সময় তিনি ঘটনা নিয়ে নুসরাতকে আপত্তিকর প্রশ্ন করেন, যা পরে তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেন।

গত ৬ এপ্রিল সকালে আলিম পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসায় যান নুসরাত জাহান রাফি। মাদ্রাসার এক ছাত্রী (নুসরাতের সহপাঠী উম্মে সুলতানা পপি ওরফে শম্পা) তাঁর  বান্ধবী নিশাতকে ছাদের ওপর কেউ মারধর করছে—এমন সংবাদ দিলে ওই ভবনের ছাদে যান নুসরাত। সেখানে বোরকা ও নেকাব পরা চার-পাঁচজন তাঁকে অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে মামলা ও অভিযোগ তুলে নিতে চাপ দেয়। নুসরাত অস্বীকৃতি জানালে তারা গায়ে আগুন দিয়ে পালিয়ে যায়।

গত ১০ এপ্রিল রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান শরীরের ৮০ শতাংশ পুড়ে যাওয়া নুসরাত।

সর্বাধিক পঠিত

Comments

এই পেইজের আরও খবর

মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন

nazrul