adimage

২০ নভেম্বর ২০১৯
সকাল ০৯:৫৩, বুধবার

হংকংয়ে বিক্ষোভ দমনে অতিরিক্ত দাঙ্গা পুলিশ মোতায়েন

আপডেট  01:48 AM, সেপ্টেম্বর ০৯ ২০১৯   Posted in : আন্তর্জাতিক    

হংকংয়েবিক্ষোভদমনেঅতিরিক্তদাঙ্গাপুলিশমোতায়েন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ৯ সেপ্টেম্বর : ইউরেশিয়ার দক্ষিণপূর্ব উপকূলের দেশ হংকংয়ে গণতন্ত্রকামীদের সরকার বিরোধী দীর্ঘ আন্দোলনের পর অবশেষে বাতিল হলো বিতর্কিত আসামি প্রত্যর্পণ বিল। যদিও এরপরও বিমানবন্দর লক্ষ্য করে উত্তেজিত জনতার এই বিক্ষোভ দমনে শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) থেকে গোটা দেশে অতিরিক্ত দাঙ্গা পুলিশ মোতায়েন করেছে প্রশাসন।

এর আগে গত বুধবার দেশটির চীনপন্থি শাসক ক্যারি ল্যাম এক টেলিভিশন ভাষণে আকস্মিকভাবে বিতর্কিত বিলটি পুরোপুরি বাতিলের ঘোষণা দেন। তবে বিক্ষোভকারীদের মতে, প্রশাসনের উদ্যোগটি নিহাতই সামান্য এবং এর জন্য অনেক দেরি হয়ে গেছে। তাই এটি এখন আর যথেষ্ট নয়।

এরই মধ্যে বৃহস্পতিবার  দেশটির চীনপন্থি সরকার সকল গণতন্ত্রপন্থি বিক্ষোভকারীদের প্রতিবাদ সমাবেশ বন্ধ করে একটি কার্যকরী আলোচনায় বসার আহ্বান জানায়।

গত জুনে শুরু হওয়া দেশটির সরকারের বিরুদ্ধে নেতৃত্ববিহীন এই আন্দোলন মূলত অনলাইনের মাধ্যমে আয়োজন করা হয়। যার অংশ হিসেবে গত শনিবার স্থানীয় সময় বিকালে বিমানবন্দর চত্বরে বিক্ষোভ আয়োজনের জন্য অনলাইনে বিশেষভাবে আহ্বান জানানো হয়।

মূলত এসবের প্রেক্ষিতে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সকল বাস, ফেরি ও রেলস্টেশনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বিশ্লেষকদের মতে, এসব দেখে মনে করা হয় এবারের বিক্ষোভ প্রতিহত করতেই প্রশাসন এমন পদক্ষেপ নিয়েছে।

এদিকে, গত বুধবার এক টেলিভিশন ভাষণে ক্যারি ল্যাম বলেছিলেন, ‘জনগণের উদ্বেগের সঙ্গে সম্পূর্ণভাবে একমত হয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বিলটি প্রত্যাহার করে নেয়া হচ্ছে। এই বিক্ষোভে হংকংয়ের জনগণ দুঃখ পেয়েছে। যে কারণে বর্তমানে দেশ একটি চরম বিপদজনক পরিস্থিতির মধ্যে রয়েছে। সরকার বা সমাজের প্রতি যে অসন্তোষই থাকুক না কেন, সমাধানের পথ সহিংসতা হতে পারে না।’

ক্যারি ল্যাম তার ভাষণে আরও বলেছেন, ‘বর্তমানে সহিংসতা বন্ধ করা, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বজায় রাখা এবং সামাজিক শৃঙ্খলা পুনর্গঠনে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার। সরকার সহিংসতা ও অবৈধ কর্মকাণ্ড নিয়ন্ত্রণে কঠোর হবে।’ তাছাড়া ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের পাশাপাশি তিনি নিজেও বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শনের মাধ্যমে সরাসরি জনগণের সঙ্গে কথা বলে তাদের উদ্বেগ জানার চেষ্টা করবেন।

অপরদিকে, ক্যারি ল্যামের এই ঘোষণাকে ভুয়া এবং জাতির সঙ্গে প্রতারণা বলে এরই মধ্যে অবহিত করেছেন গণতন্ত্রপন্থি রাজনীতিবিদ উই চি ওয়াই। তার মতে, ‘আমরা অবশ্যই পুলিশি বর্বরতা থামাতে সক্ষম হব। নয়তো বিক্ষোভ অব্যাহত থাকবে।’ তাছাড়া দেশটির গণতন্ত্রকামী অ্যাকটিভিস্ট জোসুয়া ওয়াং ধারাবাহিক টুইট বার্তায় বলেছেন, ‘সব দাবি-দাওয়া মেনে নেয়ার আগ পর্যন্ত আমাদের এই সরকার বিরোধী বিক্ষোভ অব্যাহত থাকবে।’

এর আগে গত ১৫ জুন হংকংবাসীর ব্যাপক বিক্ষোভের মুখে বিতর্কিত এই বিলটি স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেন প্রধান নির্বাহী ক্যারি ল্যাম। তবে কেবল স্থগিত নয়, বিলটি সম্পূর্ণ বাতিলের দাবিতে পরবর্তীতে আন্দোলন শুরু করে দেশটির গণতন্ত্রকামী লাখো জনতা। মূলত এসবের প্রেক্ষিতে গত ৯ জুলাই বিলটি মৃত বলে দাবি করেন তিনি।

দীর্ঘদিন যাবৎ হংকং চীনের বিশেষ প্রশাসনিক অঞ্চল হিসেবে বিবেচিত হলেও ২০৪৭ সাল থেকে অঞ্চলটিকে স্বায়ত্তশাসনের নিশ্চয়তা দেয় দেশটি। এর আগে গত মাসেও চীনপন্থি এক বিল নিয়ে উত্তাল হয়ে উঠেছিল ইউরেশিয়ার দক্ষিণপূর্ব উপকূলের এই দেশ।

সর্বাধিক পঠিত

Comments

এই পেইজের আরও খবর

মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন

nazrul