adimage

২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮
বিকাল ০১:৫৮, শনিবার

বাবার হত্যাকারীদের ক্ষমা করে দিয়েছেন রাহুল-প্রিয়াঙ্কা গান্ধী

আপডেট  02:33 AM, মার্চ ১২ ২০১৮   Posted in : আন্তর্জাতিক    

বাবারহত্যাকারীদেরক্ষমাকরেদিয়েছেনরাহুল-প্রিয়াঙ্কাগান্ধী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ১২ মার্চ : ভারতের প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর হত্যাকারীদের ক্ষমা করে দিয়েছেন তার দুই সন্তান রাহুল ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। গত শনিবার সিঙ্গাপুরে আইআইএমের আসরে ভাষণে কংগ্রেসপ্রধান রাহুল গান্ধী বলেন, ‘অনেক বছর বাবার খুন নিয়ে কষ্ট পাওয়ার ক্ষোভ থাকলেও এখন তারা দুই ভাই-বোনই খুনিদের ক্ষমা করে দিয়েছেন। হিংসা পছন্দ করেন না বলে তারা খুনের নির্দেশদাতা এলটিটিপ্রধান প্রভাকরণের মৃত্যুতেও কষ্ট পেয়েছেন বলে জানান তিনি। এনডিটিভি গতকাল রবিবার এ খবর দেয়।

১৯৯০ সালের মাঝামাঝি শ্রীলংকায় তামিল স্বাধীনতাকামী সংগঠন এলটিটির (লিবারেশন টাইগার্স অব তামিল ইলম) সশস্ত্র বিদ্রোহ জোরালো হয়। দলীয়প্রধান ভেলুপিল্লাই প্রভাকরণ তখন জঙ্গলে সরকারবিরোধী সশস্ত্র সংগ্রামের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তাকে হন্যে হয়ে খুঁজছে সেখানকার আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। ওই সময়টাতে ১৯৮৯ সালের নির্বাচনে পরাজিত কংগ্রেসপ্রধান রাজীব গান্ধী এক সাক্ষাৎকারে অঙ্গীকার করেন, পুনর্নির্বাচিত হলে তিনি আবার ভারতীয় শান্তিরক্ষী পাঠিয়ে শ্রীলংকার তামিল বিদ্রোহীদের দমনের চেষ্টা করবেন। বলা হয়, বিদ্রোহ দমন ঠেকাতেই তাকে হত্যার নির্দেশ দেন প্রভাকরণ।

রাহুল গান্ধী বলেন, ‘আমরা জানতাম বাবা নিহত হবেন। জানতাম, আমার ঠাকুরমা নিহত হবেন। রাজনীতিতে অন্যায় শক্তির সঙ্গে লড়াই করলে আপনাকে মৃত্যুবরণ করতে হবে। এটা স্পষ্ট। অনেক বছর ধরে আমরা খুবই কষ্ট পেয়েছি। আমরা খুবই ক্ষুব্ধ ছিলাম। কিন্তু আমি ও প্রিয়াঙ্কা তাদের পুরোপুরি ক্ষমা করে দিয়েছি। আমি কোনো রকম হিংসা পছন্দ করি না।’

১৯৯১ সালের ২১ মে দক্ষিণ ভারতে এক নারী এলটিটি কর্মীর আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত হন রাজীব গান্ধী। নির্বাচনী প্রচারে অংশ নেওয়ার সময় তার ওপর এক তামিল গেরিলা এই আত্মঘাতী বোমা হামলা চালায়।

২০০৯ সালে শ্রীলংকা সরকার এক ঘোষণায় জানায়, অবশেষে তারা বিদ্রোহী তামিল সংগঠন এলটিটির প্রধান প্রভাকরণকে হত্যা করতে সমর্থ হয়েছে। জাতিসংঘের ধারণা মতে, ততদিনে শ্রীলংকা সরকারের সঙ্গে দ্বন্দ্বে বলি হয়েছেন ৮০ হাজার থেকে এক লাখ এলটিটি সদস্য।

কংগ্রেস নেতা বলেন, টিভিতে প্রভাকরণের মৃত্যুর খবর দেখে দুটি বিষয় অনুভব করলাম। প্রথমত মনে হলো, কেন তারা লোকটিকে এভাবে অপমানিত করছে। দ্বিতীয়ত, প্রভাকরণ ও তার সন্তানদের জন্য আমার খারাপ লাগছিল।

১৯৮৪ সালের অক্টোবরে নিরাপত্তারক্ষীদের হাতে খুন হন ইন্দিরা গান্ধী। অথচ এক সময় ছোট রাহুল গান্ধী ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর সঙ্গে ব্যাডমিন্টন খেলতেন ওই খুনিরা।

সর্বাধিক পঠিত

Comments

এই পেইজের আরও খবর

মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন

nazrul