adimage

১৬ Jul ২০১৮
বিকাল ১১:৫২, সোমবার

সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের অর্থ ২৭ শতাংশ কমেছে

আপডেট  12:30 PM, Jun ২৯ ২০১৮   Posted in : অর্থ ও বাণিজ্য     

সুইসব্যাংকেবাংলাদেশিদেরঅর্থ২৭শতাংশকমেছে

ঢাকা, ২৯ জুন : সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে (সুইস ব্যাংক) বাংলাদেশি নাগরিকদের জমানো অর্থের পরিমাণ এক বছরের ব্যবধানে ২৭ শতাংশের বেশি কমেছে। গতকাল সর্বশেষ প্রকাশিত হিসাবে ২০১৭ সাল শেষে জমার পরিমাণ কমে ৪৮ কোটি ১৩ লাখ সুইস ফ্রাঁতে নেমেছে। বাংলাদেশি মুদ্রায় এর পরিমাণ প্রায় ৪ হাজার ৬৮ কোটি টাকা (১ সুইস ফ্রাঁ = ৮৪ দশমিক ৫ টাকা হিসাবে)। আগের বছর ২০১৬ সালে এর পরিমাণ ছিল ৬৬ কোটি ১৯ লাখ সুইস ফ্রাঁ (৫ হাজার ৫৯৪ কোটি টাকা)।
 
সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক (এসএনবি) ‘ব্যাংকস ইন সুইজারল্যান্ড ২০১৭’ শীর্ষক বার্ষিক প্রতিবেদন গতকাল বৃহস্পতিবার প্রকাশ করেছে। প্রতিবেদনে বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের অর্থ গচ্ছিত রাখার এই তথ্য পাওয়া গেছে। সুইস ব্যাংকে ২০১৫ সালে বাংলাদেশি নাগরিকদের জমার পরিমাণ ছিলো ৫৫ কোটি ৮ লাখ সুইস ফ্রাঁ। তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ২০১৩ সাল থেকে সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের আমানত বাড়তে থাকলেও ২০১৭ সালে এসে এটি কমে গেছে। অবশ্য এই আমানতের মধ্যে বিদেশে অবস্থান করছেন এমন বাংলাদেশিদেরও আমানত রয়েছে।
 
পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর এ প্রতিবেদককে বলেন, সুইস ব্যাংকগুলোতে শুধু ব্যক্তি আমনতই নয়, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অর্থও লেনদেন হয়। বিশ্বব্যাপী মানিলন্ডারিং আইনের কড়াকড়িতে সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকগুলো আগের মতো গ্রাহকদের তথ্য গোপন রাখতে পারছে না। সে কারণেও গ্রাহকরা আমানত কমিয়ে আনতে পারে। তিনি বলেন, তার মানে এই নয় যে, বাংলাদেশ থেকে অর্থ পাচার কমছে। আমদানি-রপ্তানিসহ অর্থনীতির বিভিন্ন তথ্য বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, আগের চেয়ে বাংলাদেশ থেকে অর্থ পাচার বেড়েছে। পাচারকৃত এই অর্থ সুইস ব্যাংকে জমা না হলেও বিভিন্ন দেশে সম্পত্তি ক্রয়ে বিনিয়োগ হচ্ছে।
 
সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশিদের গচ্ছিত অর্থ কমলেও এবার ভারতীয়দের গচ্ছিত অর্থের পরিমাণ বেড়েছে। ২০১৫ সালে ১২০ কোটি ফ্রাঁ থেকে ২০১৬ সালে ৬৬ কোটি ফ্রাঁতে নেমে এসেছিল ভারতীয়দের জমার পরিমাণ। অর্থপাচারে কড়াকড়ির কারণে ভারতীয়দের গচ্ছিত অর্থ গত কয়েক বছর ধরেই কমছিল। কিন্তু ২০১৭ সাল শেষে ভারতীয়দের জমার পরিমাণ প্রায় একশ কোটি ফ্রাঁতে উন্নীত হয়েছে। প্রকাশিত তথ্যে দেখা গেছে এক বছরের ব্যবধানে ভারত, নেপাল, ভিয়েতনামের নাগরিকদের জমার পরিমাণ বাড়লেও এবার পাকিস্তান, মালয়েশিয়ার গচ্ছিত আমানত কমেছে। প্রতিবেদনে দেখা যায়, সুইস ব্যাংকে ২০১৪ সালে বাংলাদেশিদের জমার পরিমাণ ছিল ৫০ কোটি ৬০ লাখ সুইস ফ্রাঁ। -ইত্তেফাক
 

সর্বাধিক পঠিত

Comments

এই পেইজের আরও খবর

মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন

nazrul